অধ্যায়-০৬ এর গুরুত্বপূর্ণ কিছু প্রশ্ন এবং উত্তর।

প্রিয় শিক্ষার্থী বন্ধুরা, আজকের এই পর্বে উচ্চ মাধ্যমিক আইসিটি বিষয়ের ষষ্ঠ অধ্যায়ের কিছু গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন এবং সমাধান দেওয়া হলো। আশা করি আপনারা উপকৃত হবেন।

প্রশ্নঃ ডেটাবেজ(Database) কি?

উত্তরঃ ডেটাবেজ হলো এক বা একাধিক ফাইল বা টেবিল নিয়ে গঠিত পরস্পর সম্পর্কযুক্ত কিছু ডেটা।

ডেটাবেজের ব্যবহারঃ

তথ্য ব্যবস্থাপনাঃ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান যেমন নির্বাচন কমিশন, পরিসংখ্যান ব্যুরো, শিক্ষা ব্যুরো, রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরো, কৃষি উন্নয়ন প্রতিষ্ঠান ইত্যাদিতে।

শিক্ষা প্রতিষ্ঠানঃ স্কুল,কলেজ, বিশ্ববদ্যালয় ইত্যাদিতে বিভিন্ন তথ্য অন্তর্ভুক্ত করণের কাজে।

উৎপাদন ব্যবস্থাপনাঃ টেলিফোনের কল রেকর্ড, মাসিক বিল, প্রিপেইড কলিং বিলের হিসাব, গ্রাহকের বিভিন্ন তথ্যাবলী সংরক্ষণে।

ব্যাংকিং: গ্রাহকের বিবরণ, ব্যালেন্স, একাউন্ট স্টেটমেন্ট, লোন, ক্রেডিট কার্ড প্রভৃতি কাজে।

মানব সম্পদ ব্যবস্থাপনাঃ কর্মচারীদের ব্যক্তিগত নথিপত্র, বেতন ভাতাদি, ওভার টাইম,আয়কর, বোনাস প্রভৃতি হিসাব প্রক্রিয়াকরণ এবং সংরক্ষণে।

শিল্প ও কলকারখানায়ঃ সম্পদের সঠিক ব্যবহার নিশ্চিত করতে এবং উৎপাদন বৃদ্ধি করতে শিল্প কারখানার বিভিন্ন সিস্টেমে ডেটাবেজ ব্যবহার করা হয়।

বৈজ্ঞানিক গবেষণায়ঃ বিজ্ঞান ও গবেষণায় সিমুলেশন ও বিভিন্ন কাজে ডেটাবেজ ব্যবহার করা হয়।

 

প্রশ্নঃ DBMS এর পূর্ণরূপ কী?

উত্তরঃ DBMS এর পূর্ণরূপ  Database Management System.

 

প্রশ্নঃ DBMS কী?

উত্তরঃ DBMS হলো সফটওয়্যার নিয়ন্ত্রিত একটি ব্যবস্থা যার মাধ্যমে ডেটাবেজ পরিচালনা, তথ্যের স্থান সংকুলান, নিরাপত্তা, ড‌েটাটাইপ, তথ্য সংগ্রহের অনুমতি ইত্যাদি নির্ধারন করা হয়।

ডেটাবেজ ম্যানেজমেন্ট সিস্টেমের প্রধান কাজ গুলো হচ্ছেঃ

ক) প্রয়োজন অনুযায়ী ডেটাবেজ তৈরি করা, ব্যবহারকারী নিয়ন্ত্রণ ও নতুন ডেটা/রেকর্ড অন্তর্ভুক্ত করা।

খ) ডেটার বানান ও সংখ্যার ভুল অনুসন্ধান ও সংশোধন, অপ্রয়োজনীয় ডেটা/রেকর্ড বাদ দেওয়া।

গ) চুড়ান্ত সম্পাদনার কাজ সম্পন্ন করা, প্রয়োজনীয় ডেটা/রেকর্ড অনুসন্ধান ও ব্যবহার করা।

ঘ) প্রয়োজন অনুযায়ী পুরো ডেটাবেজকে যে কোনো ফিল্ডের ভিত্তিতে বর্ণানুক্রমিক, সংখ্যানুক্রমিক, পদবি বা উপাধি ভিত্তিক বা অন্য কোনভাবে বিন্যস্ত করা।

ঙ) রিপোর্ট তৈরি করা এবং প্রয়োজনীয় অংশের প্রিন্ট নেওয়া।

চ) ডেটার নিরাপত্তা বিধান করা ও ডেটা সংরক্ষণ করা।

 



প্রশ্নঃ টেবিল(Table) কি?

উত্তরঃ এক বা একাধিক রেকর্ড নিয়ে টেবিল তৈরি হয়।

 

প্রশ্নঃ  ফিল্ড(Field) কি?

উত্তরঃ ফিল্ড হলো ক্ষুদ্রতম ডেটা ইউনিট যা ব্যবহারকারী একই জাতীয় ডেটাকে একটি ক্যাটাগরিতে নামকরণ করেন।

 

প্রশ্নঃ  রেকর্ড(Record) কি?

উত্তরঃ পরস্পর সম্পর্কযুক্ত কয়েকটি ফিল্ড নিয়ে গঠিত হয় এক একটি রেকর্ড।

 

প্রশ্নঃ  এনটিটি কি?

উত্তরঃ এক বা একাধিক পরস্পর সম্পর্কযুক্ত কতগুলো ফাইলের ডেটা নিয়ে গঠিত হয় ডেটাবেজ। আর যাকে নিয়ে ডেটাবেজ গঠিত হয় তাকেই বলে এনটিটি। এনটিটি হলো একটি একক ধারণা।

 

প্রশ্নঃ  এট্রিবিউট কি?

উত্তরঃ একটি এনটিটি বা একাধিক এনটিটির যে বৈশিষ্ট্য বা প্রোপার্টিজ তাকেই এট্রিবিউট বলে। যেমন ধরা যাক, ছাত্র একটি এনটিটি যার অনেক বৈশিষ্ট্য থাকতে পারে। যেমন-ছাত্রের নাম, ছাত্রের রোল, ছাত্রে ঠিকানা, ছাত্রের জিপিএ ইত্যাদি। এই বৈশিষ্ট্যসমূহকে বলা হয় এট্রিবিউট।

 

প্রশ্নঃ  ভ্যালু কি?

উত্তরঃ একটি এনটিটির যে বৈশিষ্ট্যসমূহ আছে সেই বৈশিষ্ট্যসমূহের মধ্যে প্রদত্ত ডেটা সমূহকে ভ্যালু বলা হয়।

 

প্রশ্নঃ  ডেটা টাইপ(Data Type) কি?

উত্তরঃ আমাদের দৈনন্দিন জীবনে প্রচুর ডেটা নিয়ে কাজ করতে হয়। এই ডেটার টাইপ বা প্রকৃতি বিভিন্ন প্রকার হতে পারে। যথা-Text বা Character, Number বা Numeric, Yes/No বা Logical, Date/Time, Memo, Currency ইত্যাদি।

বন্ধুরা, পোষ্টটি বেশি বেশি শেয়ার করার অনুরোধ রইলো এবং পোষ্টটি আপনার কেমন লাগলো অবশ্যই কমেন্ট করে জানাবেন। ধন্যবাদ সবাইকে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *